Saturday , August 18 2018
Breaking News
Home / বিনোদন / বলিউড / আমি সারা রাত আমার ঘরে কেঁদেছি -কঙ্গনা রানাউত
আমি সারা রাত আমার ঘরে কেঁদেছি -কঙ্গনা রানাউত
আমি সারা রাত আমার ঘরে কেঁদেছি -কঙ্গনা রানাউত

আমি সারা রাত আমার ঘরে কেঁদেছি -কঙ্গনা রানাউত

আমি সারা রাত আমার ঘরে কেঁদেছি -কঙ্গনা রানাউত
আমি সারা রাত আমার ঘরে কেঁদেছি -কঙ্গনা রানাউত

বলিউডের ‘কুইন’ হিসেবে ঝুলিতে পুরেছেন একাধিক জাতীয় পুরস্কার। কিন্তু ব্যক্তিগত জীবনে বেশ বিতর্কিত নায়িকা কঙ্গনা রানাউত। অভিনেতা হৃতিক রোশনের সঙ্গে প্রেম, বিচ্ছেদ, অভিযোগ ও মামলা নিয়ে আলোচনার শীর্ষে তিনি। এই বছরে কোনো ছবি মুক্তি পায়নি কঙ্গনার, কাটিয়েছেন অস্থির সময়। বছর শেষে এ সব বিতর্ক নিয়ে মুখ খুললেন কঙ্গনা।

হৃতিকের সঙ্গে আইনি লড়াইয়ের সময় চিঠি এবং ই-মেইল ফাঁসের বিষয়টি উল্লেখ করে কঙ্গনা বলেন, ‘এই বক্তব্যটি সেই প্রেমিকাকে উৎসর্গ করছি যার চিঠি বর্বরভাবে সকলের সামনে প্রকাশ করা হয়েছে। একজন মানুষ হিসেবে আমার কেমন লেগেছে? আপনি যখন আপনার প্রেমিককে চিঠি লিখবেন, সেখানে অনেক দুর্বল বিষয় থাকবে। তখন আপনার মনের কিছু কথা অথবা আপনার সম্পর্কে এমন কিছু বিষয় আপনি নির্দিষ্ট একজনের কাছে তুলে ধরছেন, পৃথিবীর সবার কাছে না।’

বলিউডের এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আমার মনে হয়েছে, পৃথিবীর সবার সামনে আমাকে নগ্ন করা হয়েছে। আমি সারা রাত আমার ঘরে কেঁদেছি। আর সবচেয়ে দুঃখের বিষয় হলো এই চিঠি ও ই-মেইলের সব আসল নয়। মানুষ আমাকে নিয়ে উপহাস করেছে। এমনকি এখনও যখন আমি বন্ধুদের সঙ্গে একত্র হই, তখন কৌতুকের বিষয়ে পরিণত হই। কিন্তু আমার সঙ্গে ঘটে যাওয়া এই বর্বরতার উত্তর আমি একইভাবে দিইনি। আর এটিই আমার বিজয়।’

যদিও হৃতিক সম্পর্কে কঙ্গনা সবসময় বলে এসেছেন যে তারা একসময় রোমান্টিকভাবে যুক্ত ছিলেন। কিন্তু পুরো ব্যাপারটি নাকচ করেছেন হৃতিক। হৃতিক বলছেন, তাদের মধ্যে কখনও কোনো সম্পর্ক ছিল না। কঙ্গনাই নাকি তাকে বিরক্ত করতেন বলে অভিযোগ করে আসছেন তিনি।

হৃতিকের নাম উল্লেখ না করে কঙ্গনা বলেন, ‘পৃথিবী আমাকে একজন সফল মানুষ হিসেবে দেখে। কিন্তু ব্যক্তিগত ও মানসিকভাবে আমি শুধুই একজন প্রেমিকা। যদি নিজের কিছু ভালোবেসে থাকি, তবে তা এই ভালবাসার ক্ষমতা। যার প্রতি এই অনুভূতি, সে যদি আমাকে ভালো নাও বেসে থাকে, তারপরেও সেই ভালবাসাতেই আপ্লুত থাকব আজীবন।’

২৯ বছর বয়সী এ অভিনেত্রী নিজের কথাগুলো তৃতীয় কোনো ব্যক্তির গল্পের মাধ্যমে তুলে ধরে বলেন, ‘পাহাড়ি এলাকায় একটি মেয়ে যার অনেক উচ্চাকাঙ্ক্ষা ছিল, অনেক স্বপ্ন দেখত। যে মোটেও বাস্তববাদী ছিল না, অত্যন্ত সরল এবং জেদি ছিল। সেই মেয়েটির বয়স যখন ১৪, তখন সে একটি পুরুষের ছবি দেখে তার প্রেমে পড়ে যায়। সেই ছবিটিই তাকে পাহাড়, সমুদ্র, মরুভূমি পাড়ি দিয়ে এমন একটি জায়গায় হাজির করল, যেখানে সে তারাভরা আকাশের নিচে সেই পুরুষটিকে চুমু খেয়ে বলল, ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি।’

কঙ্গনা আরও বলেন, ‘তারপর যা হলো, পুরুষটি বুঝল এই মেয়ে স্বাভাবিক নয়। মেয়েটি ছিল একটি শাবকের মতো। যেকারণে পুরুষটি তাকে ভয় পেয়েছিল। তখনই পুরো গল্প ট্র্যাজেডিতে রূপ নেয়। এই বিষয়টি আমি কখনোই সামলে উঠতে পারতাম না, যদি আমার মধ্যে উচ্চাকাঙ্ক্ষা না থাকত।’

অভিনেত্রী বলেন, ‘সবাই দেখেছে আমি কীভাবে সামনে এসে লড়াই করেছি, কিন্তু একজন নারী হিসেবে আমি যখন এই বর্বরতার শিকার হয়েছি, তখন আমার অবস্থাটা কী হয়েছিল, তা কেউ দেখেনি।’

পরিশেষে কঙ্গনা জানান, একজন নারীর দুর্বল বিষয় এবং তার আকাঙ্ক্ষা নিয়ে উপহাস করে লজ্জিত করা ঠিক না। পুরো অনুষ্ঠানে তার কথায় তিনি হৃতিক প্রসঙ্গে কথা বললেও তার নাম উল্লেখ করেননি কঙ্গনা। সমালোচকদের মতে, এমনটি করে বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়েছেন নায়িকা।

Check Also

road-accident-motorbike_35403_1483181931

মোটরসাইকেলে সেলফি, প্রাণ গেল যুবকের

একুশ বিডি : বেনাপোলে মোটরসাইকেলে নিয়ে ঘুরতে বের হয় তিন বন্ধু চঞ্চল (১৭), সোহেল (১৮) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *